খালার সাথে মাস্তি– প্রথম পর্ব

December 3, 2020 | By Admin | Filed in: আন্টি সমাচার.
সাবিলা খালা আমার ১৫ বছরের বড়। আমার তখন ২২ আর খালার বয়স ৩৭.
খালা অনার্স কম্পলিট করেছে বিয়ের পরে। ১০ বছরের একটা মেয়ে আছে। সুখি পরিবার। খালু একটি নামী প্রতিষ্টানে চাকরি করে আবার নিজের অফিস সামগ্রী সাপ্লাইয়ের ব্যাবসা আছে।

খালা একটি স্কুলে পার্ট টাইম ক্লাস নেয়। দরকার নেই শুধু সখের বসেই করে। ৪বেড রোমের ফ্লাট নিজের। খালার দুই পরিবারের সবার কাছে খালা খুব প্রিয় মানুষ। সবার খোজ খবর নেওয়া এবং কার কি দরকার সব দিকে খালার খেয়াল থাকে।

আমি সাব্বির একটি ইউনিভার্সিটিতে পড়ি। ঢাকা থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে। হলেই থাকি। ছুটির আগের দিন খালার বাসায় আসি বা বন্ধ হলেই চলে আসি। খালার মেয়ে খুশিকে পড়াই এবং আড্ডা মেরে যাই। আমিই একমাত্র কাছাকাছি আত্বীয়। সবাই কুমিল্লা থাকে।

খালা খুব হাসিখুশি মানুষ। দুধে আলতা গায়ের রঙ। খুব স্মার্টলি ফিটিংস বডি। পুরুষ যদি দেখে তাহলে প্রথম দেখার এট্ট্রাকশন সেক্সুয়্যালিটিই হবে। খালা যদি কালো কাজলের মত চোখ দিয়ে হাসে তাহলে গালে যে টোল পরে তা খুব আসক্তি যোগায়। খালার একটা বড় গুন হল যেকোন সময় খালাকে দেখলেই মনে হয় নাইস এন্ড ফ্রেস। খুব পরিপাটি হয়ে সব সময় সতেজ থাকে। এই বয়সেও খালার একটুও মেদ নেই শরীরে, বাসায় একটি দৌড়ের মেশিন আছে। সকাল বিকাল ১৫ কিলোমিটার দৌড় খালার রুটিন।

আমার যেহেতু আপন খালা তাই আমি কখনো খারাপ চিন্তাভাবনা করি নাই। তবে খালার মত একটি মেয়ে কল্পনা করি। লোভাতুর চাহনিতে গালে টুল পরা মেয়ে আমার চাই। কল্পনায় বহুবার চিন্তা করেছি সেক্সুয়্যাল মিলনে এই চৌখ আর টুল আমাকে উত্তেজিত করে। টুল পরা মেয়েদের হয়তোবা চাহিদা বেশি তাই আমার ভাগ্যে এখনো জুটে নাই।

একদিন বিকালে খালার বাসার বারান্দায় চা খাচ্ছি বসে। আচমকা খালার প্রশ্ন। সাব্বির তোর গার্লফ্রেন্ড নাই?

আমি লজ্জা পেয়ে যাই। শুধু না বলি।

খালা হেসে দিয়ে বলে, কিরে এত লজ্জা পাচ্ছিস কেন? ইউনিভার্সিটিতে পড়িস। মেয়ে বন্ধুদের মাঝে স্পেশাল কেও থাকতেই পারে। লজ্জার কি আছে।

কিছুক্ষন কথা বলে অনেকটা জড়তা কমে যায় আমার। অনেক কথার মাঝে খালার প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে বলি গালে টুল পরা মেয়ে আমার পছন্দ। পাচ্ছিনা তাই খুজতেছি।

কেন গালে টুল লাগবে কেন?

আমার ভাল লাগে। তোমার গালের টুলের কারনে হাসি দিলে সুন্দর লাগে। শুনেছি টুল পরা মেয়েরা খুব ভাল হয়।

তা শুনিস নাই যে টুল পরা মেয়েরা খুব খুব বদমেজাজি হয়। স্বামীকে মারধর করে।

তাই নাকি? তুমি খালুকে মার দেও নাকি? সবাই তোমাকে এত ভালবাসে। তা আমি কি করে বিশ্বাস করি বল? তোমাদের মাঝে এত সুসম্পর্ক। আমার মনে হয় এই টুলের জন্যেই হয়তোবা। মারামারির কথা বলেতো আমার টুল প্রেমে ভয় হচ্ছে এখন।

আরে গাধা, ভাল স্বভাবের ভদ্র মেয়ে হলে টুলমুল কিছুই না। সুখি হতে দুইজনেরই কাজ করতে হয়। ভাল একটা মেয়ে খোজে নিয়ে কিছুদিন প্রেম করে বুঝে শুনে বিয়ে করতে হবে। সম্পর্ক হলে বাসায় নিয়ে আসবি, আমি কথা বলে দেখবো।

চেষ্টা করবো খালা, আমার কিন্তু টুল চাই। এত দিন টুলওয়ালা একটি মেয়ে কল্পনায় বসবাস করেছে। দেখি পাই কিনা?
আবার টুল। কি পাইছিস এই টুলে। তোর খালুতো আমাকে গাল কাটা বলে।

এই টুল আমার বিরক্ত লাগে। মাঝে মাঝে তোর খালুর কথা শুনে। আর তুই তাই পছন্দ করিস।

বিজ্ঞানের ভাষায় এই টুলকে মুখের মাংসপেশির বংশগত ত্রুটি বলা হয়ে থাকে।। কিন্তু মানুষ তা খুব পছন্দ করে। অনেক কবি সাহিত্যিক গল্প কবিতা রচনা করেছে এই টুল বা ডিম্পলকে নিয়ে। এক ধরনের আবেদন আছে, আকর্শন আছে, ইনভাইটেশন আছে, মানুষকে পুলকিত করে।

ওরে বাবা তুইতো দেখি টুল নিয়ে রীতিমতো গবেষনা করে ফেলেছিস। আর কি কি হয় শুনি।

তোমার সাথে এত ডিটেইলস আলোচনা করা যাবে না।

কেন?

কিছু আলোচনা আছে ফিল্টার দেওয়া থাকে। যেখানে সেখানে করা যায় না। ফিল্টারে আটকিয়ে দেয়। তবে আমার বহু জানা আছে। কারন আমি একজন টুল লাভার। তোমার টুল দেখেই আমি টুলের পাগল হয়েছি।

আমার টুল দেখে কি তুই আমাকে তোর প্রেমিকার সাথে তুলনা করছিস।

হ্যা তাইতো, তোমার টুল পরা গালের হাসি দেখেই আমার ভাললেগেছে তাই আমি আমার সংগীরও টুল চাই।

টুলে কি ভাত দেয়? ভালবাসা থাকলে তা কিছুই লাগেনা। আজ আর কথা বাড়িয়ে সময় নষ্ট করবো না। তুই টুম্পাকে একটু অংক দেখিয়ে দে আর আমি খাবার রেডি করি।

কয়েক মাস পরে খালু একটা ট্রেনিংয়ে চায়না যায়। আমার দায়িত্ব পরে দুই মাস বাসায় থাকার। বাসা থেকেই ক্লাস করি। খালুর ড্রাইভার নামিয়ে দিয়ে আসে মাঝে মাঝে আবার নিয়েও আসে।

আগের চেয়ে খালার সাথে আমি এখন ফ্রি। অশ্লিল কথা ছাড়া সব কথাই আমরা বলি। আমি লক্ষ্য করেছি খালার টুল নিয়ে প্রশংসা শুনতে খুব ভাল লাগে। আমি একদিন কথা বলতে বলতে গিয়ে বলি, দৈহিক চাহিদার অনেকটাই নির্ভর করে সংগীনির এক্সপ্রেশনের উপর আর আমি মনে করি টুল আমার সেটা পুরন করবে।

খালা আমার দিকে চেয়ে বলে, সেটা কি করে?

খালা মানুষ কেন সুন্দর পুরুষ বা মেয়ে চায়? এট্ট্রাকশন যদি না থাকে তাহলে দৈহিক চাহিদা জাগ্রত হয়না। দেখতে সুন্দর সংগী হলে সব কিছু সুন্দর। তবে অনেকের কাছে দেখতে ভিন্নতা আছে। অনেকের অনেক কিছু ভাল লাগে। আমার লাগে তোমার এই টুল। আমি হাত দিয়ে দেখিয়ে দেই।

কি বলিস? আমার টুল মানে?

আরে খালা, তোমার মানে তোমার মত টুল। কাজল মাখা বড় বড় চোখের লোভনীয় হাসি।

তুইতো দেখি সত্যিই পাগল। আমার মত পাবে কোথায়। আমিতো আর কোথাও জন্ম নেইনাই যে তুই পাবি।

পাই আর না পাই। আমি কিন্তু তোমার মত মেয়ে চাই বলে দিলাম। না পাইলে বিয়েই করবোনা।

এই টুলের জন্য বিয়েই করবিনা? আমারই দোষ। কেন আমার টুল আছে আর তুই দেখে দেখে পাগল হয়েছিস। আমার মেয়েরও টুল আছে। টুম্পা কি আর তোর মত বুড়া জামাই পছন্দ করবে বড় হয়ে। বলে খালা হেসে দেয়।

খালা তুমি যতই হাসনা কেন? আমার কিন্তু ভাল লাগে। তুমি সারাদিন হাসতে থাক। আমি চেয়ে চেয়ে দেখতে পারি।

তোর খালার হাসি আর টুল দেখছিস আর বদ নজরে দেখিস খারাপ লাগেনা।

খালা তুমি বদ নজর বলছ কেন? তোমাকে নিয়েতো আমি আর খারাপ চিন্তা করছি না।

আমি একটা বইতে পড়েছিলাম, সব পুরুষ মেয়েদের সাথে সম্পর্ক যাই হউক। মনে মনে সেক্সুয়াল ইন্টেমেসি তৈরি হয়। তুই একজন ইয়াং পুরুষ। হতেই পারে। তাই আর কথা না বলে টপিক চেঞ্জ করি।

দুইদিন পর বিকাল বেলা ড্রাইভারকে নিয়ে বাহির হই আমি খালা আর টুম্পা। দিয়া বাড়ি হয়ে আমাদের সবার পছন্দের পুচকা খেয়ে আনন্দ করি। বাসায় আসার সময় রাস্তায় পাথরে হোচট খেয়ে পরে গিয়ে ভীষন ব্যাথা পায়। হাটু এবং পায়ের গোড়ালি মচকে যায়। ধরে গাড়িতে উঠিয়ে ডাক্তার দেখিয়ে বাসায় আসি।

বাসার সামনে গাড়ি থেকে নেমে খালা পায়ের উপর দাড়াতেই পারছেনা। কোন রকম ধরাধরি করে লিপ্টে নিয়ে আসি।

খালাকে বিছানায় শুয়ে দিয়ে ডাক্তারের কথা মত আইস কাপড়ে পেছিয়ে পায়ের গোড়ালিতে ধরে রাখি। হাটুতে ছিলে যাওয়া জায়গায় অয়েন্টমেন্ট লাগাতে গেলে খালা বাধা দিয়ে বলে তুই যা আমি লাগিয়ে নিব।

আমি বুঝতে পেরেছি খালা আমার সামনে হাটু দেখাতে চায় না। আমি ঘরের বাহিরে চলে যাই। টুম্পাকে নিয়ে বসে কথা বলি।

সবচেয়ে বড় সমস্যা হল খালার বাসায় কাজের মানুষ নাই। নিজের কাজ নিজে করার মধ্যে নাকি আনন্দ। আমার হল সমস্যা। সকাল বেলা দোকান থেকে নাস্তা এনে দেখি খালার পায়ের গোড়ালি পুলে আছে। পা মাটিতে রাখতেই পারছেনা। একটা মেস্কি পরে বিছানায় শুয়ে আছে। আমি ধরে নিয়ে টয়লেটে যাই।

নাস্তা করে স্কুলে ফোন করে বলে দেয় কয়েকদিন ক্লাস নিতে পারবেনা। আমি টুম্পাকে স্কুলে দিয়ে আসি।

ভাগ্যিস আমার কয়েকদিন ক্লাস নাই। সোফায় বসে আমি খালার পায়ের গোড়ালিতে জেল মাখিয়ে সুন্দর করে ম্যাসেজ করে দেই।

সাব্বির তোরে ধন্যবাদ। আমার খেয়াল রাখছিস। খুব একটা ব্যাথা নাই কিন্তু দাড়াতে কষ্ট হচ্ছে। মনে হয় একটা এক্স্রে করাতে হবে। আমার মনে হয় না ভেংগেছে। তোর ম্যাসেজিং খুব ভাল লাগছে। ব্যাথা আর আরামের একটা সংমিশ্রন ব্যাটার ফিল হচ্ছে।

আমি খালার দিকে চেয়ে বলি, তোমার হাটুর কি অবস্তা।

সেখানে কিছুই না। একটু চিলে গেছে।

তুমি ডাক্তারকে ঠিক দেখতে দিলে কিন্তু আমাকে দেখতে দিচ্ছ না কেন?

ডাক্তার হল চিকিৎসক, তারা সব দেখতে পারে। তুই ভাগিনা।

খালা ডাক্তার তোমার সেবা করেছে। আমিও করছি। মনে কর আমি নার্স।

ঠিক আছে বলেই খালা মেক্সি উঠিয়ে দিয়ে বলে, হাটুতে তেমন কিছুই না, দেখতে ছাস দেখে নে।

সত্যিই তেমন কিছু না। চিলে লালা হয়ে আছে। আমি অয়েন্টমেন্ট নিয়ে মাখিয়ে দিয়ে হাটু থেকে গোড়ালি পর্যন্ত ভাল করে ম্যাসেজ করে দেই। খালা ব্যাথা ও আরামে চোখ বন্ধ করে আছে।

তিনদিন রুটিন করে ম্যাসেজ আর সেবায় খালা সুস্থ হয়ে যায়। এখন হাটতে পারে। আমারও খুব ভাল লাগছে।

 

নতুন ভিডিও গল্প!


Tags: , , ,